পলাশবাড়ীতে বিদ্যুতের পিলার হিসেবে জীবন্ত ইউক্লিপটাস গাছ ও বাঁশের খুঁটির ব্যবহার

299

বিদুষ রায় (গাইবান্ধা) ‌বি‌শেষ প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধার পলাশবাড়ীতে পিডিবি কর্মকর্তাদের দায়িত্ব অবহেলার কারণে দীর্ঘদিন থেকে দূর্গাপূর (নয়াবাজার) যাওয়ার রাস্তাটিতে বিদ্যুতের পিলার হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে জীবন্ত ইউক্লিপটাস গাছ ও কোথাও বাঁশের খুঁটি। এবিষয়ে প্রায় পাঁচ-ছয় মাস আগে বিভিন্ন প্রিন্ট, ইলেকট্রোনিক ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ফলাও করে খবর প্রকাশিত হলেও আজ পর্যন্ত বিদ্যুৎ বিতরণ কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় জনমনে সৃষ্টি হয়েছে ক্ষোভের।

সেই সঙ্গে প্রশ্ন উঠেছে দায়িত্ব অবহেলার?সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, পৌরশহরের বৈরী হরিনমারী ওয়ার্ডের মধ্যদিয়ে দূর্গাপুর যাওয়ার রাস্তাটিতে বিদ্যুৎ বিতরণ লাইনের অসংখ্য তার ঝুঁলতে দেখা যায়। বিদ্যুৎ বিতরণ কর্তৃপক্ষের মাঝে দু’একটি বিদ্যুতের পিলার বাদে বাকি স্থানগুলোতে খুঁজে পাওয়া যায়নি পিলার। যেখানে বিদ্যুতের পিলার নেই সেখানে দেখতে পাওয়া যায়, জীবন্ত ইউক্লিপটাস গাছকে ব্যবহার করা হচ্ছে বিদ্যুতের খুঁটি হিসেবে।

এমনকি ঝুঁকিপূর্ণ ভাবে বিদ্যুতের পিলার হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে জীবন্ত বাঁশ ঝাড়ের খুঁটি। রাস্তার উপরে এবং রাস্তার সাইড দিয়ে ঝুলন্ত অবস্থায় রয়েছে বিদ্যুতের তার গুলো। বিদ্যুতের ঐ তারগুলো নিচ থেকে (হাত) দিয়ে ধরা যাবে। আর এ কারণে ঘটে যেতে পারে প্রাণহানির মত বড় ধরণের দূর্ঘটনা। নিমিষেই নিভে যেতে পারে জলন্ত প্রাণ প্রদীপ।

অথচঃ ঐ এলাকায় প্রায় হাজার দেড়েক বিদ্যুৎ গ্রাহক রয়েছেন। বিদ্যুৎ গ্রাহকগণ অভিযোগ করে বলেন, বিদ্যুৎ লাইনের সমস্যার কারণে বাড়ীতে ফ্রিজ ও টিভি পর্যন্ত চালাতে পারেন না নো ভোল্টেজের কারণে। তারা আরও বলেন, দীর্ঘদিন থেকে বিদ্যুতের এই লাইনটি সংস্কার ও মেরামতের জন্য একাধিকবার ধর্ণা দেওয়া হয়েছে। তারা অফিসে গেলে বলেন, পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। কিন্তু সে পদক্ষেপ কি বড় ধরণের দূর্ঘটনার পর নেওয়া হবে প্রশ্ন করেন তারা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ভুক্তভোগী বিদ্যুৎ গ্রাহক জানান, দীর্ঘদিন থেকে আমাদের এখানে পিডিবি’র বিদ্যুৎ বিতরণ লাইনগুলো জীবন্ত গাছ ও বাঁশের খুঁটিকে পিলার হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। এমনকি বিদ্যুতের পিলার না থাকায় অসংখ্য গ্রাহকের তারগুলো ঝুঁলন্ত ভাবে নিচ দিয়ে ও গাছের ডালপালার ভিতর দিয়ে নিয়ে যাওয়ার কারণে অত্যান্ত ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে।

যে কোনো সময় প্রাণহানিসহ অঙ্গহানির মত দূর্ঘটনা ঘটতে পারে। তিনি জরুরী ভিক্তিতে বিদ্যুৎ বিতরণ কর্তৃপক্ষের আশুহস্তক্ষেপ কামনাসহ দ্রুত বিদ্যুৎ লাইনটি সংস্কারের জোর দাবি জানান।এবিষয়ে (রাইগ্রাম-বৈরীহরিণমারী-হরিণমারী) ৮নং ওয়ার্ডের পৌর কাউন্সিলর প্রার্থী এছাহাক আলী এ প্রতিনিধিকে বলেন, দীর্ঘদিন থেকে বিদ্যুতের লাইনটির এ অবস্থা। বিদ্যুতের পিলার ও লাইনটি সংস্কারে দ্রুত এলাকাবাসীকে নিয়ে প্রয়োজনীয় জরুরী পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে।

এ বিষয়ে জানতে বিদ্যুৎ বিতরণ কর্তৃপক্ষের পলাশবাড়ী আবাসিক প্রকৌশলীর নিকট একাধিকবার ফোন দেওয়া হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি। তবে দায়িত্বশীল এক কর্মকর্তা এ প্রতিনিধিকে জানান, ঐ এলাকার বিদ্যুৎ লাইন মেরামত ও সংস্কারের জন্য টেন্ডার সম্পূর্ণ হয়েছে। কিন্তু রাস্তার দু’ধারে গাছ থাকার কারণে দ্রুত মেরামত ও সংস্কার কার্যক্রম শুরু করা যাচ্ছে না। যার কারণে গ্রাহকগণদের ঝুঁকির মধ্যেই বিদ্যুৎ ব্যবহার করতে হচ্ছে।

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, দৈনিক প্রত্যাশা প্রতিদিন এর দায়ভার নেবে না।