ভূরুঙ্গামারীতে টানা বৃষ্টির পর অনাকাঙ্ক্ষিত বন্যা মহাবিপদে উপজেলাবাসী

196

সোহেল রানা কুড়িগ্রাম( ভূরুঙ্গামারী) প্রতিনিধি:। কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারীর দুধকুমার, ফুলকুমার, কালজানী, সংকোশ, গঙ্গাধরসহ সবকটি নদ-নদীর পানি অস্বাভাবিক ভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। সাথে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে দুধকুমার ও কালজানী নদের ভাঙ্গন। ফলে ছোট হচ্ছে ভূরুঙ্গামারীর মানচিত্র।দুধকুমার ও কালজানী নদীর অব্যাহত ভাঙ্গনে শিলখুড়ী ইউনিয়নের উত্তর তিলাই, উত্তর ধলডাঙ্গা, দক্ষিণ ধলডাঙ্গা, শালঝোড়, তিলাই ইউনিয়নের খোঁচাবাড়ি, দক্ষিণ ছাট গোপালপুর, শালমারা, ভূরুঙ্গামারী ইউনিয়নের নলেয়া, চর ভূরুঙ্গামারী ইউনিয়নের ইসলামপুর, পাইকেরছড়া ইউনিয়নের পাইকডাঙ্গা, ও বঙ্গ সোনাহাট ইউনিয়নের গনাইর কুটি গ্রাম বিলীনের পথে। হুমকির মধ্যে পড়েছে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর বীরমুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযুদ্ধের বিশিষ্ট সংগঠক মরহুম শামসুল হক চৌধুরী কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত বঙ্গবন্ধুর নামে দেশের প্রথম শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বঙ্গবন্ধু উচ্চ বিদ্যালয়, গনাইরকুটি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় সহ বেশ কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠন। এতে দিশেহারা হয়ে পড়েছে নদী তীরের মানুষজন।

 

দুধকুমার নদী ভাঙ্গনে ইসলামপুর গ্রামের দুই শতাধিক বসতবাড়ি, শতশত বিঘা ফসলি জমি ও ১টি মসজিদও দুটি কবর স্থান নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। আরো চার শতাধিক পরিবার, তিনটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও একটি আশ্রয় কেন্দ্র সহ বিস্তীর্ণ জনপদ ভাঙ্গনের হুমকিতে রয়েছে। ভাঙ্গন অব্যাহত থাকলে অচিরেই গ্রাম দু’টি পুরোপুরি বিলীন হয়ে যাবে। ভাঙ্গন রোধে নিয়মিত নদী খনন ও বাঁধ নির্মাণের দাবি জানিয়েছে ভাঙ্গন কবলিত এলাকার মানুষ।

দুধকুমার নদের ভাঙ্গনে পাইকেরছড়া ইউনিয়নের দুটি গ্রামোর দেড় শতাধিক ঘরবাড়ি, কয়েকশো বিঘা ফসলি জমি, গাছ ও বাঁশ বাগান নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। ভাঙনের মাত্রা বেড়ে যাওয়ায় লোকজন তাদের ঘরবাড়ি অন্যত্র সরিয়ে নিচ্ছে। হুমকির মুখে পড়েছে দক্ষিণ চর ভূরুঙ্গামারী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পাইকডাঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও আব্দুল করিম ১৫শ নামের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি।

 

টানা বৃষ্টির ফলে তলিয়ে গেছে উপজেলার সর্বত্র এলাকার ফসলি জমি সহ সকল সবজির খেত। সবজির উৎপাদন বন্ধ হবার কারনে সবজি শুন্যে হয়ে পরেছে বাজার গুলি, সামান্য সবজি বাজারে পাওয়া গেলেও বিক্রি হচ্ছে চার গুন বেশি দামে বিপদ সমস্যার সম্মুখীন হয়েছেন সাধারণ ক্রেতারা।

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, দৈনিক প্রত্যাশা প্রতিদিন এর দায়ভার নেবে না।