ধুনটে বাদীকে কুপিয়ে আহতের ঘটনায় মামলা দায়ের

339
ধুনট

লিখন, ধুনট (বগুড়া) প্রতিনিধি :- ধুনটে অপহরণ ও ধর্ষণ মামলার আসামি গ্রেফতারের ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয়ে মামলার বাদী নরেন চন্দ্র সরকারকে কুপিয়ে আহত করার ঘটনায় মামলা দায়ের হয়েছে। সোমবার সকালে ধুনট থানায় ৪ জনের বিরুদ্ধে নরেন চন্দ্র সরকার বাদি হয়ে এ মামলা দায়ের করেন। নরেন চন্দ্র সরকার উপজেলার ভান্ডার বাড়ি ইউনিয়নের বানিয়াজান চল্লিশ পাড়া গ্রামের মৃত সরকারের ছেলে।

মামলা সুত্রে জানা যায়, ধর্ষক শাকিল গোসাইবাড়ি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণিতে পড়ুয়া এক হিন্দু ছাত্রীকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে আসছিলো। প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় শাকিল বিভিন্ন সময় মেয়েটিকে উত্যক্ত করতে থাকে। ছাত্রীর বাবা শাকিলের অভিভাবককে বিষয়টি জানানোর পর শাকিল ক্ষুব্ধ হয়ে ছাত্রীকে অপহরণের পরিকল্পনা করে। পরিকল্পনা অনুযায়ী গত ২৮ মে বিকেলে ওই ছাত্রীটি বাড়ির পাশে রাস্তায় হাটাহাটি করছিলো। তখন সুযোগ বুঝে ওৎ পেতে থাকা শাকিল ও তার বন্ধু সুজন জোরপূর্বক সি এন জি অটো রিকশায় তুলে ওই ছাত্রীকে অপহরণ করে নিয়ে যায়।

এ ঘটনায় পুলিশ গত ২৫ জুন নীলফামারী পুরাতন বাসস্ট্যান্ড এলাকা থেকে অপহৃত ছাত্রীকে উদ্ধার করে। ১ সেপ্টম্বর সোমবার সন্ধ্যায় ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামী শাকিল কে গ্রেফতার করে ২রা সেপ্টম্বর মঙ্গলবার আদালতে প্রেরণ করে থানা পুলিশ। এঘটনায় ক্ষিপ্ত হয়ে মামলার অন্যান্য আসামি ও তার সহযোগিরা ৩রা সেপ্টম্বর বুধবার সন্ধ্যায় উপজেলার বানিয়াজান জামে মসজিদ সংলগ্ন রাস্থায় নরেন সরকার কে হত্যার উদ্দ্যশে কুপিয়ে আহত করে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে নরেন চন্দ্র সরকার বলেন, বিভিন্ন সময় আসামিরা ধর্ষন ও অপরহন মামলা তুলে নেওয়ার জন্য হুমকি দিয়ে আসছিলো। আমি মামলা তুলতে রাজি না হওয়ায় তারা আমাকে হত্যার উদ্দ্যেশে এলোপাতারি ভাবে কুপিয়ে আহত করে। এঘটনায় ৭ সেপ্টম্বর সোমবার সকালে ৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছি। ধুনট থানার অফিসার্স ইনচার্জ (তদন্ত) কামরুজ্জামান মিয়া জানান, প্রথমিক তদন্তে ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে। আসামীদের দ্রত গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা হবে।

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, দৈনিক প্রত্যাশা প্রতিদিন এর দায়ভার নেবে না।