পাঁচবিবিতে যৌতুকের দাবীতে নির্যাতিতা নারীর মামলা

172

 

আবু হাসান, পাঁচবিবি (জয়পুরহাট) প্রতিনিধি ঃজয়পুরহাটের পাঁচবিবিতে পৌর এলাকার মালঞ্চা গ্রামে যৌতুকের দাবীতে একজন নারী তার স্বামী ও তার পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে জয়পুরহাট বিজ্ঞ আমলী আদালতে মামলা দায়ের করেছেন (মামলা নং-১৮৩ পি/২০২০ (পাঁচ)। মামলার বিবরণে জানা যায়, নির্যাতিতা নারী মালঞ্চা গ্রামের আসাদুজ্জামানের মেয়ে আজমেরী সুলতানা (২৫) এর সাথে গত ২০১৮ সালের জুন মাসে উপজেলার ধরঞ্জী ইউনিয়নের বাগুয়ান গ্রামের আঃ সালামের পুত্র রবিউল (২৮) এর সাথে ২ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা মোহরানা ধার্য করে বিয়ে হয়। এছাড়া বিয়ের অনুষ্ঠানে বাদীনির পিতা নগদে ২ লক্ষ টাকার, ১ লক্ষ টাকার স্বর্ণালঙ্কার এবং২ লক্ষ টাকার উপহার সামগ্রী প্রদান করেন। তার স্বামী বেকার হওয়ার কারণে চাকুরীর জন্য ৫০ হাজার টাকা প্রদান করেন। পরে আবারো হিলি পানামা পোর্টে চাকুরীর জন্য ১ লক্ষ টাকা প্রদান করেন। পোর্টে চাকুরী করা অবস্থায় বিবাদী রবিউল ইসলাম উপজেলা রতনপুর গ্রামের এক পরকিয়ার জড়িয়ে পড়ে। তার পর থেকে বাদীনির উপর চালাতে থাকে যৌতুকের জন্য নির্যাতন। বিষয়টি রবিউলের পিতাকে বললেও তার পিতা ছেলের পক্ষে কথা বলে। অনুরুপ ভাবে তার ননদ শারমিন ও তার স্বামী তহিদুল তাদের পক্ষ নেয়। এভাবে চলতে চলতে গত ২৮ অক্টোবর-২০২০ তারিখে রবিউল তার আঃ সালামকে মেয়ের পিত্রালয়ে মিমাংসার জন্য ডাকলে তারা ৫ লক্ষ টাকা যৌতুক দাবী করে। অন্যথায় বাদীনিকে তালাক দিয়ে অন্যত্র বিবাহ করবে বলে হুমকী দিয়ে চলে যায়। এই ঘটনাকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার জন্য রবিউল ও তার পিতা মিথ্যা ঘটনার অবতারণা করে আদালতে মামলা দায়ের করে। এমতবস্থায় নির্যাতিতা নারী আজমেরী সুলতানা নিরুপায় হয়ে গত ১২ নভেম্বর ইং তারিখে স্বামী,শশুড়,শাশুড়ীসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে। মামলার অভিযোগের বিষয়ে বিবাদী পক্ষের সঙ্গে কথা বললে তারা অভিযোগগুলি অস্বীকার করেন।

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, দৈনিক প্রত্যাশা প্রতিদিন এর দায়ভার নেবে না।