নওগাঁয় নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করেই চলছে প্লাস্টিক কাটিং কারখানার কার্যক্রম

235

মাহবুবুজ্জামান সেতু,নওগাঁ প্রতিনিধিঃ নওগাঁর মান্দায় ভারশোঁ ইউপির চৌবাড়িয়া হাটে নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করেই চলছে “মের্সাস ভাই ভাই প্লাস্টিক কাটিং কারখানার কার্যক্রম। সেইসাথে চলছে শিশুশ্রম। কারখানাতে শিশু শ্রমিকের সংখ্যা ক্রমেই বেড়ে চলেছে। ঝুঁকিপূর্ণ এ কাজে স্বল্প বেতনের পারিশ্রমিকে শ্রমিকদের সম্পৃক্ত করে একদিকে যেমন মজুরি বৈষম্যের সৃষ্টি করছে, অন্যদিকে শ্রম আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে চালাচ্ছেন প্লাস্টিক কাটিং কারখানা।

মজার ব্যাপার হলো, প্লাস্টিক কাটিং কারখানার নেই লাইসেন্সের মেয়াদ, দেওয়া নাই সরকারি ভ্যাট ও পরিবেশ অধিদপ্তরে ছাড়পত্র, কারখানার মালিক শ্রম মন্ত্রণালয়কে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে চালিয়ে যাচ্ছে প্লাস্টিক কারখানা। সরেজমিনে, মান্দা উপজেলার চৌবাড়িয়া হাটের মেসার্স ভাই ভাই প্লাস্টিক কাটিং কারখানায় গেলে শিশু শ্রমিক রুবেল, করিম আলী, আকলিমা বিবি, মাবিয়া বিবি, মুনছুর হোসেন জানান, স্বল্প বেতনে জীবিকা নির্বাহের জন্য তারা কারখানায় কাজ করছেন।

সাংবাদিক পরিচয় পাওয়ায় কারখানার ম্যানেজার ও মালিক শাহ্জালাল মন্ডল পাঁচজন শিশু শ্রমিককে কৌশলে তাড়িয়ে দেন, এর ফাঁকে একজন শিশু শ্রমিক ক্যামেরাবন্দি হয়। ম্যানেজার আরব আলী এবং মালিক শাহ্জালাল বলেন, শিশুরা কাজ করছে তাতে কী হয়েছে। তারা কি খুব কষ্টদায়ক কোনো কাজে নিয়োজিত? গরিব মানুষ এখানে কাজ করার বিনিময়ে যতটুকু আয় করছে, তাতে তাদের পরিবারের ব্যয় নির্বাহের ক্ষেত্রে সহযোগিতাই তো হচ্ছে। মান্দা উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল হালিম বলেন, এ বিষয়ে কোনো অভিযোগ আমাদের নিকট আসেনি। তবে বিষয়টি খতিয়ে দেখে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হবে ।

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, দৈনিক প্রত্যাশা প্রতিদিন এর দায়ভার নেবে না।