পীরগঞ্জের  টিও এর বিরুদ্ধে ভুয়া কাগজপত্র দেখিয়ে গাছ কাটার অভিযোগ

178
আজাদুল ইসলাম আজাদঃ পীরগঞ্জ, রংপুর প্রতিনিধি : রংপুরের পীরগঞ্জে উপজেলা প্রাথমীক শিক্ষা কর্মকর্তা (টিও)  সহ তিন জনের বিরুদ্ধে ভুয়া কাগজপত্র দেখিয়ে বিদ্যালয়ের গাছ কাটার অভিযোগ পাওয়া গেছে।
অভিযুক্ত ব্যাক্তিরা হলেন, টিও রফিকুজ্জামান, শামীম মিয়া ও পাটগ্রাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক  সফিকুর রহমান।
অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার চতরা ইউনিয়নের অনন্তপুর সরকারী প্রাথমীক বিদ্যালয়ে ২৪টি ইউক্যালিপটাস গাছ কাটার জন্য  ৩ সেপ্টেম্বর  নিলামের  আয়োজন করে।  এতে ডাকে অংশগ্রহণ করেন ৮৯ জন। ডাকের আদেশ ৪৬ হাজার টাকা থেকে শুরু হয়ে শেষ পর্যন্ত  ২ লক্ষ ৫৫ হাজার টাকায়  নিলাম ডাকে উঠে। এসময়, বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক কবির হোসেন সভাপতি খাদেমুল ইসলাম  ও  উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার ছাদেকুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন। সেখানে শামিম মিয়া
প্রথম ডাকের  মাধ্যমে গাছ পেয়ে যায় ।
কিন্ত গত ২৯ তারিখে ডাকের ২ লক্ষ ৫৫ হাজার টাকার বিপরীতে পীরগঞ্জ সোনালী ব্যাংকের শাখায় ৬ হাজার টাকা দেয়। পরে সেই টাকার চালানসহ প্রয়োজনীয় কাগজ পত্র বিদ্যালয়ের  সভাপতি হাতে দিয়ে গাছ কর্তনের অনুমতি চায়। এ কাগজপত্র নিয়ে সভাপতির সন্দেহ হয়, পরে যাচাই-বাছাই এর মাধ্যমে ভুয়া কাগজ পত্র হিসাবে গন্য হয়। বিষটি উপজেলা শিক্ষা অফিসারকে জানানো হলে ঘন্টা খানেকের  মধ্যে ২ লক্ষ ৫৫ হাজার টাকার ব্যাংকের চালানের কাগজ মেলে।
পরে উপজেলা শিক্ষা অফিসার রফিকুউজ্জামান সভাপতিকে একটি চিঠি প্রদান করে, প্রধান শিক্ষক কবির হোসেন কে শতবার ফোন দিয়েও তার কোন সাড়া মেলেনি। সহকারী শিক্ষা অফিসার ছাদেকুল ইসলাম ঐ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকদের কে ডেকে গাছ কাটা বন্ধের জন্য খোলা চিঠি দেন এবং স্কুলের  দেয়ালে টাংগিয়ে রাখেন। এবিষয়ে বিদ্যালয়টির সভাপতি পীরগঞ্জ থানায় রফিকুজ্জামান, শামীম মিয়া ও পাটগ্রাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক  সফিকুর রহমানের বিরুদ্ধে  লিখিত অভিযোগ করেন। রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত এলাকায় ক্ষোভ এবং মামলার প্রস্তুতি চলছে।
ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিদ্যালয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে, দোষী ব্যক্তিদের
আইনের আওতায় এনে  দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করে।
শিক্ষা অফিসার যানায়, এ বিষয়ে  আমার কোনো গাফিলতি নেই ৩ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি তদন্ত প্রতিবেদন দিলে আমরা ব্যবস্থা নিবো।
পীরগঞ্জ থানার অফিস ইনচার্জ(ওসি) সরেস চন্দ্র জানায়, আমরা অভিযোগ পেয়েছি উপরের অনুমতি পেলে ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।
খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, দৈনিক প্রত্যাশা প্রতিদিন এর দায়ভার নেবে না।