জোরপূর্বক প্রায় ৫ লক্ষ টাকা মূল্যের গাছ কেটে নিয়েছে ইউপি চেয়ারম্যানের ভাই!

219

মোহাম্মদ আশরাফুল,  কাজিপুর (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ সিরাজগঞ্জের কাজিপুরে জোরপূর্বক মালিকানাধীন সম্পত্তি দখল ও প্রায় ৫ লক্ষ টাকা মূল্যের ২৫টি গাছ কেটে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

উপজেলার মনসুর নগর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক রাজমহরের ছোট ভাই আনোয়ার হোসেন (৪৩) ও তার লোকজন কুমারিয়াবাড়ী গ্রামের শফিকুল ইসলামের স্ত্রী শিলা খাতুন (৩৫) এর মালিকাধীন সম্পত্তি দখলসহ ২৫টি গাছ কেটে নিয়েছেন। এ বিষয়ে শীলা খাতুন কাজিপুর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের ও পরে মামলা করেছেন।অভিযোগে আনোয়ারসহ শালগ্রামের দলুজ্জামানের ছেলে শফিকুল ইসলাম (৩৮) ও ফরিদ হোসেন (৩৩), কুমারিয়াবাড়ী গ্রামের মৃত দুদু কেরানির ছেলে জুয়েল (৩৮) ও জহুরুল  ইসলাম, ছালাল গ্রামের আবু বক্কর সিদ্দীকের ছেলে সোহেল রানা (৩৭) এবং শালগ্রামের মৃত কাসেমের ছেলে চাঁন মিয়া (৫০) মিয়ার নাম উল্লেখ করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৮ অক্টোবর) বিকেলে সরেজমিন গিয়ে ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, শিলা খাতুন তার পৈত্রিক সূত্রে প্রাপ্ত জমিতে পূর্বে গাছ লাগিয়েছিলেন। গাছগুলো ইতোমধ্যে অনেক মোটা লম্বা হয়েছে। অভিযুক্তরা পেশীশক্তির জোরে ও ভয়ভীতি প্রদর্শন করে ওই জমি অবৈধভাবে ভোগ দখল করে রেখেছে।সম্প্রতি ওই জমিতে লাগানো প্রায় ৫ লক্ষ টাকা মূল্যের ২৫টি গাছ কেটে নেয় তারা।

ভূক্তভোগী শিলা জানান, “চেয়ারম্যান থেকে শুরু করে মাতব্বরদের কাছে অনেকবার বিচার চেয়েও কোন বিচার পাইনি। থানায় অভিযোগ দেয়ার পর চেয়ারম্যান ও তার লোকজন আমাদের প্রাণনাশের হুমকি, বাড়ি-ঘর ভেঙ্গে দেওয়ার ভয়ভীতি দেখাচ্ছে। এ জন্যে আমরা আতঙ্কের মধ্যে আছি।” এ সব কিছুই করাচ্ছে ইউপি চেয়ারম্যান রাজমহর এবং অভিযুক্তরা এলাকায় দাপটের সাথে ঘুরে বেড়াচ্ছে বলেও জানান তিনি।

মনসুরনগর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক রাজমহর জানান, “অভিযোগ পেয়ে বিচার করার জন্য বাদীকে খুঁজেছি। কিন্তু তাকে ওই সময় পাইনি। তারা এলাকায় থাকেন না।”

এদিকে অভিযোগের সূত্র ধরে কাজিপুর থানা পুলিশ ওই চেয়ারম্যানকে বিষয়টি সমাধান করার পরামর্শ দিয়েছেন। কিন্তু ঘটনার দুই সপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও কোন সুরাহা মেলেনি। পরে শীলা খাতুন গত ২৮ সেপ্টেম্বর সিরাজগঞ্জ আদালতে মামলা দায়ের করেন।

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, দৈনিক প্রত্যাশা প্রতিদিন এর দায়ভার নেবে না।