কালাইয়ে নবান্ন উপলক্ষে হরেক রকমের মাছের মেলা 

240

রকিবুল হাসান,ভ্রাম্যমাণ(জয়পুরহাট) প্রতিনিধি : পঞ্জিকা অনুসারে সোমবার পহেলা অগ্রহায়ণ হওয়ায় জয়পুরহাটের কালাই উপজেলার পাঁচশিরা বাজারে বসে বিভিন্ন জাতের মাছের মেলা। মূূূলত এটা জামাইদের নিয়ে মাছের মেলা কিন্তু সবাই এটাকে বলে নবান্ন উতসব উপলক্ষে মাছের মেলা।

এ দিনটিকে ঘিরে এখানে দিনব্যাপী চলে মাছ কেনা ও বিক্রি করার উৎসব।

অগ্রহায়ণ মাসে কিছুটা ঠান্ডা হলেও মেলা জুড়ে ছিল ক্রেতা বিক্রেতা আর কৌতুহলী মানুষের শত ঢল। প্রায় একশত বছর আগে থেকে চলে আসা মেলায় নদী, দীঘি ও পুকুরে স্বাভাবিক ভাবে বেড়ে উঠা দেশিয় প্রজাতির টাটকা মাছ কিনতে ক্রেতারা ও পাইকাররা ভিড় জমায়।

এই অগ্রহায়ণ মাসে মাঠ থেকে নতুন ফসল কৃষকদের ঘরে উঠলেই নবান্ন উৎসবের আয়োজন করেন উপজেলার সকল কৃষকরা। এই অনুষ্ঠান পালন করতে আসেন জেলা ও উপজেলায় অবস্থিত তাদের জামায়-মেয়েসহ আত্মীয়-স্বজনরা।

মেলার প্রতিটি দোকানে সাজানো হয়েছিল বোয়াল, রুই, মৃগেল, কাতলা, চিতল, সিলভার কার্প, পাঙ্গাস, বিগহেড, বাঘা আইরসহ নানা ধরনের মাছ। সর্বোচ্চ ১৪ কেজি ওজনের মাছ বিক্রি হয়েছে সেখানে।

মেলায় মাছ বিক্রি করতে আসা ব্যবসায়ী মো. সাইফুল ও আব্দুল লতিফ বলেন, এই মাছের মেলার জন্য বিভিন্ন পুকুর, দীঘি ও নদী থেকে নানা জাতের বড় বড় মাছ সংগ্রহ করা হয়। কাতলা, রুই, মৃগেল ৭শ থেকে ৮শ টাকা কেজিতে এবং বাঘা আইর, বোয়াল ও চিতল মাছ হাজার থেকে ১২শ টাকা কেজিতে বিক্রি হলেও মাঝারি আকারের মাছ সাড়ে ৪শ টাকা থেকে ৫শ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। এছাড়া ৩০০ টাকা কেজি দরে বির্গেড ও সিলভার কার্প বিক্রি হচ্ছে।

মেলায় মাছ কিনতে আসা অাওড়া মহল্লার লেবু, কালাই পৌরপাড়ার পারভেজ,ও রিপন বলেন, অন্য বছরের চেয়ে এবার মাছের দাম একটু বেশি। তাই অামরা তিন বন্ধু মিলে ৮ কেজি ওজনের বির্গেড মাছ কিনেছি।

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, দৈনিক প্রত্যাশা প্রতিদিন এর দায়ভার নেবে না।