শাকিবের সঙ্গে ডিভোর্স নিয়ে যা বললেন বুবলী

276
শাকিবের সঙ্গে ডিভোর্স নিয়ে যা বললেন বুবলী
শাকিবের সঙ্গে ডিভোর্স নিয়ে যা বললেন বুবলী

আলোচিত নায়িকা শবনম বুবলী বলেছেন, শাকিব খানের সঙ্গে আমার বিচ্ছেদের খবরটি একান্তই গুজব ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে করা হচ্ছে। যার কোনো ভিত্তি নেই। বিচ্ছেদ হয়ে গেলে আরও ৮ মাস আগেই তো এ সংবাদ প্রকাশ্যে আনতে পারতাম। মঙ্গলবার (১১ অক্টোবর) একটি গণমাধ্যমকে দেয়া সাক্ষাতকারে তিনি এ কথা বলেন।

এ সময় বুবলী বলেন, আমার ও শাকিবের বিচ্ছেদের খবরটি গুজব ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। যার কোনো ভিত্তি নেই। আমাদের মধ্যে বিচ্ছেদ হলে এখন কেন আমরা আমাদের বিয়ে আর সন্তানের বিষয়টি সামনে আনব? তাহলে তো আট মাস আগেই আনতাম।

তিনি আরও বলেন, কে বা কারা এ ধরনের ভিত্তিহীন গুজব ছড়াচ্ছে তা বোধোগম্য নয়। আমাদের সন্তানের বিষয়টি সামনে আনার পর থেকে নানা ভিত্তিহীন গুজব অনেকে সামনে এনে ব্যক্তিগত আক্রমণ করতে চাইছেন যা আসলে ঠিক নয়। আমরা বিয়ে করেছি, সন্তান পৃথিবীতে এসেছে সুন্দর একটি পরিবারের জন্য। সুন্দরভাবে সংসার করার জন্য, বিচ্ছেদের জন্য নয়।

বাবা হিসেবে কতটুকু দায়িত্ববান শাকিব এমন প্রশ্নের উত্তরে বুবলি বলেন, শাকিব খান আসলে বাবা হিসেবে সন্তানকে নিয়ে এবং সন্তানের উজ্জ্বল ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে অনেক সুন্দর পরিকল্পনা করেন। সবসময় পাশে থাকার চেষ্টা করেন। কিন্তু তিনি নিজেও তো অনেক ব্যস্ত, নানা ব্যস্ততায় সবসময় সব পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে হয়তো একটু সময় লেগে যায়। তাছাড়া সবকিছু নিয়ে ওকে বেশি প্রেশার দিতে চাই না আমি। তাই যে কোনো দায়িত্ব বাস্তবায়নের ব্যাপারটি আমিই মূলত দেখাশোনা করি। এ জন্য এই ব্যাপারটিও পরিবারে চেক অ্যান্ড ব্যালান্স করে নিয়েছি। সেক্ষেত্রে একজন পরিকল্পনাকারী, আরেকজন বাস্তবায়নকারী। এভাবেই চলছে।

বিয়ের পর হানিমুনে কোথায় গিয়েছিলেন এ প্রশ্নের জবাবে বুবলী বলেন, বিয়ের সময় এবং বিয়ের পরও টানা শুটিং চলছিল। শুটিংয়ের জন্য দেশ-বিদেশের অনেক জায়গায় যাওয়া হলেও আলাদা করে হানিমুনের সময়টা আমাদের ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও বের করাটা সম্ভব হচ্ছিল না। বিয়ের পর হানিমুনের থেকেও আমাদের শুটিংয়ের কমিটমেন্টগুলো গুরুত্বপূর্ণ ছিল। এ জন্য লাস্ট টাইম (গত বছর) আমেরিকায়ই হানিমুনের ঘোরাঘুরিটা হয়েছে। তাই বলতে পারেন বিয়ের পর আমাদের হানিমুন আমেরিকায় হয়েছে।

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, দৈনিক প্রত্যাশা প্রতিদিন এর দায়ভার নেবে না।